এবাদত-বন্দেগির মধ্য দিয়ে পালিত হলো পবিত্র শবে-বরাত

সোমবার, ২৩ মে ২০১৬

এবাদত-বন্দেগির মধ্য দিয়ে পালিত হলো পবিত্র শবে-বরাত

এবাদত-বন্দেগির মধ্য দিয়ে পালিত হলো পবিত্র শবে-বরাত

সিটিজিবার্তা২৪ডটকম ডেস্ক  ঃ বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বের ধর্মপ্রাণ মুসলমানগণ মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি ও নৈকট্য লাভের আশায় এবাদত-বন্দেগির মধ্য দিয়ে সারারাত অতিবাহিত করে পালিত হলো মুসলিম সম্প্রদায়ের সৌভাগ্যের রজনী পবিত্র শবে-বরাত।

ঢাকাসহ দেশের সর্বত্র নারী-পুরুষ, শিশু-বৃদ্ধসহ সর্বস্তরের মুসলমান নফল নামাজ- কোরআন তেলাওয়াত, মিলাদ মাহফিল ও জিকির-ওয়াজের মধ্যে মশগুল থাকেন। তারা দেশ, জাতি ও মুসলিম উম্মাহর সমৃদ্ধি এবং কল্যাণ কামনা করে মোনাজাত করেন। শবে-বরাত উপলক্ষ্যে অনেকে নফল রোজাও রাখেন। জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমসহ দেশের প্রতিটি মসজিদে মুসল্লিদের ব্যাপক উপস্থিতি ছিল।

হিজরি সালের শাবান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাতটি বিশ্ব মুসলিম উম্মাহ শবে বরাত বা সৌভাগ্যের রজনী হিসেবে পালন করে থাকে। রবিবার রাতটিই ছিল পবিত্র শবে বরাত। মুসলিম সম্প্রদায়ের জন্য এ রাতটি ‘লাইলাতুল বরাত’ অর্থাৎ সৌভাগ্যের রজনী।

পবিত্র শবে বরাতে ফজরের নামাজের পর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। মোনাজাতে দেশ ও বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর কল্যাণ ও সুখ-সমৃদ্ধি কামনা করে দোয়া করা হয়।

প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ যাবতীয় দুর্যোগ ও অশান্তির হাত থেকে দেশকে রক্ষার জন্য মোনাজাতে দোয়া করা হয়।

এবাদত-বন্দেগির মধ্য দিয়ে পালিত হলো পবিত্র শবে-বরাত

বায়তুল মোকাররমের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ মিজানুর রহমান আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন। মোনাজাতে রাজধানী ও আশেপাশের এলাকার হাজার হাজার মুসল্লি উপস্থিত হন।

বায়তুল মোকাররমের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ মিজানুর রহমান আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন। মোনাজাতে রাজধানী ও আশেপাশের এলাকার হাজার হাজার মুসল্লি উপস্থিত হন।

মহিমান্বিত এই রজনী উপলক্ষে রোববার (২২ মে) বাদ মাগরিব থেকে রাতব্যাপী জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে কুরআন তিলাওয়াত, হামদ-নাত, ওয়াজ মাহফিল, মিলাদ অনুষ্ঠিত হয়।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে রাত পৌনে আটটায় ‘শবেবরাতের ফযিলত’, নয়টায় ‘ইবাদত ও দোয়ার গুরুত্ব’ সাড়ে এগারোটায় ‘শবে বরাত ও রমজানের তাৎপর্য’ ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ মহিউদ্দিন কাসেম রাত পৌনে ১টায় ‘যিকিরের গুরুত্ব ও ফযিলত’ তুলে ধরে মোনাজাত করেন এরপর ‘তাহাজ্জুদ নামাজের গুরুত্ব ও ফযিলত’ বিষয়ে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম।

 

পবিত্র শবে বরাত উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি শবে বরাতের পবিত্র রজনীতে সর্বশক্তিমান আল্লাহর দরবারে অশেষ রহমত ও বরকত কামনার পাশাপাশি দেশের অব্যাহত অগ্রগতি, কল্যাণ এবং মুসলিম উম্মাহর বৃহত্তর ঐক্যের প্রার্থনা করেছেন।
তিনি বলেন, ‘পবিত্র শবে বরাতের পূর্ণ ফজিলত আমাদের ওপর বর্ষিত হোক। মহান আল্লাহ আমাদের প্রার্থনা কবুল করুন। মাহে রমজান ও সৌভাগ্যের আগমনী বার্তা নিয়ে পবিত্র শবে বরাত আমাদের মাঝে সমাগত। এই পবিত্র রজনী মানব জাতিকে আল্লাহ তা’য়ালার বিশেষ অনুগ্রহ ও ক্ষমালাভের অপার সুযোগ এনে দেয়।’

প্রধানমন্ত্রী তার বাণীতে বলেন, সৌভাগ্যের এই রজনী মানব জাতির জন্য বয়ে আনে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের অশেষ রহমত ও বরকত। এই রাতে তিনি ক্ষমা এবং প্রার্থনা পূরণের অনুপম মহিমা প্রদর্শন করেন। তিনি আরও বলেন, ‘রহমতের এই রাত আমাদের জন্য শান্তি, সমৃদ্ধি ও উন্নয়নের বার্তা বয়ে আনুক।’

মুসলমানদের বিশ্বাস, মহিমান্বিত এই রাতে মহান আল্লাহতায়ালা মানুষের ভাগ্য অর্থাৎ তার নতুন বছরের ‘রিজিক’ নির্ধারণ করে থাকেন।

মহিমান্বিত এ রজনী ভাবগম্ভীর পরিবেশের মধ্য দিয়ে পালনের লক্ষ্যে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে রবিবার রাতে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানমালার মধ্যে ছিল, ওয়াজ মাহফিল, কোরআন তেলাওয়াত, মিলাদ মাহফিল, হামদ্, না’ত, নফল ও তাহাজ্জুদের নামাজ এবং আখেরী মোনাজাত।

পবিত্র এ রাতে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররকসহ দেশের সকল মসজিদ রাতব্যাপী খোলা ছিল।

বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতারসহ বিভিন্ন বেসরকারি টিভি চ্যানেল ও রেডিও এ উপলক্ষে ধর্মীয় নানা অনুষ্ঠান সম্প্রচার করে। দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে জাতীয় দৈনিকগুলোতে বিশেষ নিবন্ধ প্রকাশিত হয়।

পবিত্র শবে বরাত উপলক্ষে আজ সোমবার সরকারি ছুটি থাকবে।

আপনার মতামত দিন....

এ বিষয়ের অন্যান্য খবর:


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


CAPTCHA Image
Reload Image

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.