ওয়ার্ল্ড ফুড প্রাইজ গ্রহণ করলেন স্যার ফজলে হাসান আবেদ

2015_10_16_16_38_27_ve20hViSSB0BalI6mCe8ZJ0oCyz1de_original

শনিবার,১৭ অক্টোবর ২০১৫

সিটিজি বার্তা ২৪ ডট কম

ডেস্ক রিপোর্ট ঃখাদ্য ও কৃষিক্ষেত্রের নোবেল প্রাইজ বলে খ্যাত ওয়ার্ল্ড ফুড প্রাইজ গ্রহণ করেছেন ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারপারসন স্যার ফজলে হাসান আবেদ।
শুক্রবার বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ৬টায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আইওয়ায় তার হাতে এই পুরস্কার তুলে দেন ওয়ার্ল্ড ফুড প্রাইজ চেয়ারম্যান তৃতীয় জন রুয়ান।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কৃষিমন্ত্রী টম ভিলসেক, আইওয়া সিনেটের প্রেসিডেন্ট প্যাম ইয়োকোম, আইওয়া হাউসের স্পিকার লিন্ডা আপমায়ার, ওয়ার্ল্ড ফুড প্রাইজ প্রেসিডেন্ট অ্যাম্বাসেডর কেনেথ কুইন, মালাওয়ি প্রজাতন্ত্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ও জয়েস বান্ডা ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা জয়েস বান্ডা।

অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন আইওয়ার গভর্নর টেরি ব্র্যানস্টাড।

বিশ্ব খাদ্য দিবস উপলক্ষে প্রতি বছর ওয়ার্ল্ড ফুড প্রাইজ ফাউন্ডেশন এই পুরস্কার দিয়ে থাকে। ক্ষুধাপীড়িত জনগোষ্ঠীর জন্য খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি ও বণ্টনে অনন্য অবদান রাখার স্বীকৃতিস্বরূপ ২০১৫ সালের জন্য স্যার ফজলে হাসান আবেদকে এই পুরস্কার দেয়া হলো। পুরস্কারের আর্থিক মূল্য হচ্ছে আড়াই লাখ মার্কিন ডলার।

পুরস্কার পাওয়ার প্রতিক্রিয়ায় ফজলে হাসান বলেন, ওয়ার্ল্ড ফুড প্রাইজ প্রাপ্তি আমার জন্য এক পরম সম্মান বয়ে এনেছে। এই পুরস্কার শুধু আমার একার না, এই সাফল্যগাঁথার পেছনে প্রকৃত নায়ক দরিদ্ররাই, বিশেষত দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে সংগ্রামরত নারীরা। দরিদ্র পরিবারে সাধারণত নারীরাই অপ্রতুল সম্পদ দিয়ে সংসার পরিচালনা করেন। এ থেকেই ব্র্যাক উপলব্ধি করে যে, উন্নয়ন প্রচেষ্টায় নারীদেরই পরিবর্তনের চালিকাশক্তি করতে হবে।

ওয়ার্ল্ড ফুড প্রাইজ ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট কেনেথ কুইন বলেন, বিশ্বব্যাপী জনসংখ্যা যখন নয়শ কোটি ছাড়িয়ে যাবে, তখন ক্ষুধাপীড়িত মানুষের মুখে খাবার তুলে দেয়া হবে একটি বিরাট চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জকে সামনে রেখেই স্যার ফজলে ও তার প্রতিষ্ঠান ব্র্যাক নারীশিক্ষা বিস্তার, ক্ষমতায়ন এবং পুরো প্রজন্মকে দারিদ্র্যমুক্ত করার একটি অসাধারণ মডেল উদ্ভাবন করেছেন। এই অনন্য কীর্তির জন্য এ বছর তিনিই এই পুরস্কারের যোগ্য ব্যক্তি।

উল্লেখ্য, গত ১ জুলাই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই পুরস্কারের জন্য স্যার ফজলে হাসান আবেদের নাম ঘোষণা করে।

প্রসঙ্গত, স্যার ফজলে হাসান আবেদ এরআগেও বহু জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- স্প্যানিশ অর্ডার অব সিভিল মেরিট, লিও টলস্টয় ইন্টারন্যাশনাল গোল্ড মেডেল, গেটস অ্যাওয়ার্ড ফর গ্লোবাল হেলথ, ইনোগরাল ওয়াইজ প্রাইজ ফর এডুকেশন, ইনোগরাল ক্লিনটন গ্লোবাল সিটিজেন অ্যাওয়ার্ড, ইউএনডিপি মাহবুব উল হক অ্যাওয়ার্ড ফর আউটস্ট্যান্ডিং কনট্রিবিউশন টু হিউমেন ডেভলপমেন্ট, র‌্যামন ম্যাগসেসে অ্যাওয়ার্ড ফর কমিউনিটি লিডারশিপ।

২০০৯ সালে ব্রিটিশ রাজপরিবার তাকে নাইট উপাধি দেয়।

আপনার মতামত দিন....

এ বিষয়ের অন্যান্য খবর:


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


CAPTCHA Image
Reload Image

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.