চট্টগ্রামকে নিরাপত্তার বলয়ে ঢেকে দেয়া হবে : মেয়র নাছির

সুগন্ধা আবাসিক এলাকা সিসি টিভি ক্যামেরার আওতায় এলো

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিটিজিবার্তা২৪ডটকম

সোমবার, ৪ জুলাই ২০১৬

চট্টগ্রামকে নিরাপত্তার বলয়ে ঢেকে দেয়া হবে : আ জ ম নাছির উদ্দীন

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন সুগন্ধা আবাসিক এলাকা আজ থেকে সিসি টিভি ক্যামেরার আওতায় এলো। প্রায় ৭ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ৩২ টি ক্যামেরা স্থাপিত হয়েছে। সার্বক্ষনিক মনিটরিং এর মাধ্যমে সুগন্ধা আবাসিক এলাকাকে নিরাপত্তার বেষ্টুনীতে আনা হয়েছে।

সোমবার (৪ জুলাই) বিকেলে এক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন বটম টিপে সিসি টিভি ক্যামেরার শুভ উদ্বোধন করেন।

সুগন্ধা চসিক আবাসিক এলাকা কল্যাণ সমিতির কার্যালয়ে সমিতির সভাপতি, চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি আলহাজ্ব মাহাবুবুল আলম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সুধি সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন সিটি মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন। বিশেষ অতিথি ছিলেন সিএমপি’র পুলিশ কমিশনার মো. ইকবাল বাহার, পিপিএম। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন অত্র সমিতির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মোহাম্মদ হোসেন, পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মহিউদ্দিন।

অনুষ্ঠানে ১৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. গিয়াস উদ্দিন, ৩৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব, ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো.সাইফুদ্দিন খালেদ, সুগন্ধা আবাসিক কল্যাণ সমিতির সহ-সভাপতি আলহাজ্ব সামসুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাঈমুল আহসান, সদস্য এম এ মোতালেব ও মীর নাছির উদ্দিন শুভ সহ দি চিটাগাং কো-অপারেটিভ সোসাইটির পরিচালনা কমিটির সদস্যবৃন্দও উপস্থিত ছিলেন।

সিটি টিভি উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, চট্টগ্রামকে নিরাপত্তার বলয়ে ঢেকে দেয়া হবে। নগরীর সকল সড়ক, লেইন-বাইলেইন, আবাসিক এলাকা, বাণিজ্যিক এলাকা, বিপনী বিতান, কাঁচা বাজার, সর্বত্র সিসি টিভি ক্যামেরার নেটওয়ার্কের আওতায় আনায়নের উদ্যোগ নেয়া হবে। মেয়র বলেন, প্রতিটি বাসা বাড়ীর বাসিন্দাদের বিষয়ে একে অপরকে সজাগ ও সচেতন থাকতে হবে। বেসরকারী নিরাপত্তা কর্মী নিয়োগে যাবতীয় তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করেই নিয়োগ দিতে হবে। প্রাইভেট নিরাপত্তা কর্মীদের একই ডিজাইনের ইউনিফরম পড়তে হবে। কোম্পানীর লোগো থাকতে হবে।

জনাব আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, প্রত্যেক পিতা-মাতাকে তাদের তরুন ও যুবক সন্তানদের গতিবিধি মনিটরিং করতে হবে। যাতে তারা বিপদগামী হতে না পারে। মেয়র বলেন, নাগরিক দায়িত্ব পালনে নগরবাসী সজাগ ও সচেতন হলে চট্টগ্রাম অবশ্যই নিরাপদ নগরী হবে। তিনি বলেন, প্রাচ্যের রানী চট্টগ্রামকে ক্লিন ও গ্রিন সিটিতে পরিনত করা গেলে দেশের সুনাম আরো বৃদ্ধি পাবে।

সুধি সমাবেশে বিশেষ অতিথি সিএমপি’র কমিশনার মো. ইকবাল বাহার বলেন, প্রতিটি আবাসিক এলাকার ভাড়াটিয়াদের ওয়াচে রাখতে হবে। তাদের গতিবিধি নিয়ন্ত্রন করতে হবে। কারো বিষয়ে অস্বাভাবিক কিছু চোখে পড়লে পুলিশ প্রশাসনকে খবর দেয়ার আহবান জানান তিনি।

পুলিশ কমিশনার বলেন, নগরবাসীর সার্বিক সহযোগিতায় নগরীকে নিরাপদ নগরীতে পরিনত করা সম্ভব হবে।

আপনার মতামত দিন....

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


CAPTCHA Image
Reload Image

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.