“চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত হয়েছে বাফুফের বিশেষ গোপন সাধারণ সভা”

শনিবার, ১২ মার্চ ২০১৬  ১৫:৪৫ ঘন্টা

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিটিজিবার্তা২৪ডটকম

"চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত হয়েছে বাফুফের বিশেষ গোপন সাধারণ সভা"

সাংবাদিকদের বাফুফের বিশেষ গোপন এই সাধারণ সভা সম্পকে অস্পষ্ট আংশিক জানাচ্ছেন সালাম মুর্শেদী

চট্টগ্রাম : ঢাকার বাইরে প্রথমবারের মত বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) বিশেষ সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে বন্দর নগরী চট্টগ্রামে।

আজ শনিবার (১২ মার্চ)  দুপুরে নগরীর আগ্রাবাদস্থ ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে এ সভা অনুষ্ঠিত হলেও কোন সংবাদ মাধ্যমকে সভাস্থলে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। এমনকি চট্টগ্রামে প্রথমবারের মত এ সভার আয়োজন করলেও তার কোন ক্রীড়া সাংবাদিকদের আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। এই বিশেষ সাধারণ সভা নিয়ে আয়োজকদের লুকোচুরি হতাশ করেছে চট্টগ্রামের ক্রীড়া সাংবাদিকদের।

বাফুফের সিনিয়র সহ-সভাপতি সালাম মুর্শেদী সভায় সভাপতিত্ব সাধারণ সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাফুফের সহ-সভাপতি বাদল রায়, চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, সংসদ সদস্য শামসুল হকসহ বাফুফের সদস্যরা।

সভা শেষে বাফুফের সিনিয়র সহ-সভাপতি সালাম মুর্শেদী সভাস্থলের বাইরের অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের সংক্ষিপ্ত ব্রিফিং করলেও সভার সিদ্ধান্তের ব্যাপারে কোনো কথা বলেননি।

সালাম মুর্শেদী সাংবাদিকদের বলেছেন, চট্টগ্রামে সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যদের মতামতের ভিত্তিতে বিশেষ সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় অর্থবিল পাশ হওয়াসহ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ এজেন্ডা নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

মুর্শেদী বলেন, আজকের সভাটি মূলত তিন অর্থ বছরের আর্থিক প্রতিবেদন পাশ করতেই করা হয়েছে। আর বাফুফের সংবিধানে ঢাকার বাইরে করা যাবে সেরকম কোনও নিয়ম নেই। আজকের সভায় তিন অর্থ বছরের প্রতিবেদন সর্বসম্মতিক্রমে পাশ করা হয়েছে। এছাড়া যারা ফোরামের বাইরে গিয়ে কথা বলেছেন তাদের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব আনার পাশাপাশি বাফুফের কোড অব কন্ডাক্ট ভাঙার কারণে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে তিনি জানান।

বিশেষ সূত্রে জানাগেছে,  সাধারণ সভায় ১৩২ ডেলিগেটের মধ্যে ১১৪ জন উপস্থিত থাকলে ঢাকার নামিদামি বেশ কয়েকটি ক্লাবের কর্মকর্তারা অংশ নেননি। এমনকি শুধুমাত্র তিন অর্থ বছরের আর্থিক প্রতিবেদন পাশ করাতে ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে এই বিশেষ সাধারণ সভার বিরুদ্ধেও অবস্থান নিয়েছেন বাংলাদেশের ফুটবল অঙ্গনের প্রভাবশালী ওই সংগঠকরা।

সাধারণ সভায় সাংবাদিকদের প্রবেশিধকার নিষিদ্ধ থাকার ব্যাপারে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বাফুফের সহ সভাপতি বাদল রায় বলেন, ‘ইজিএম বাংলাদেশের যে কোনো জায়গায় করা যায়। যারা এটির বিরোধীরা বলছে, তারা এটি না বুঝেই করছেন। তাদের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব আনা হয়েছে। আজকের এই বিশেষ সাধারণ সভা নিয়ে যারা ঢাকায় বসে গণমাধ্যমে বিভিন্ন বক্তব্য রাখছেন তাদের উচিত ছিল এই ফোরামে এসে এসব কথা বলা। তারা সেটি না করে সংগঠনের কোড অব কন্টাক্ট ভেঙেছে।

চট্টগ্রামের অনুষ্ঠিত এই ইজিএম উপলক্ষে সারাদেশ থেকে ১২০ জন ডেলিগেটকে বিমানে আনা হয়েছে। বিগত তিন বছরের অডিট রিপোর্ট পাশ করতে এদের উপঢৌকন ও রাতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজনও করা হয়েছে বলে না প্রকাশে অনিচ্ছুক কর্মকর্তারা জানান।

আপনার মতামত দিন....

এ বিষয়ের অন্যান্য খবর:


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


CAPTCHA Image
Reload Image

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.