চার তরুনের কাঁধে বাংলাদেশের দায়িত্ব

বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮

খেলা ডেস্ক, সিটিজিবার্তা২৪ডটকম

চার তরুনের কাঁধে বাংলাদেশের দায়িত্ব

আফিফ হোসেন, আরিফুল হক, নাজমুল ইসলাম অপু ও জাকির হাসান।

চোটের সমস্যায় ক্ষত-বিক্ষত বাংলাদেশ শিবির। দলে নেই একাধিক সিনিয়র ক্রিকেটার। তাই ভরসা তরুণরাই। পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাতে ঘরোয়া ক্রিকেটের সেরা পারফরমারদের সুযোগ করে দিয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট। মিরপুরে আজ প্রথম টি-টোয়েন্টিতে অভিষেক হলো চার তরুন ক্রিকেটারের- আফিফ হোসেন, আরিফুল হক, নাজমুল ইসলাম অপু ও জাকির হাসান।

বাংলাদেশের ক্রিকেটে এর আগে এক সঙ্গে চার ক্রিকেটারের অভিষেক হয়েছিল জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খুলনায় ২০১৬ সালের ২০ জানুয়ারি। টি-টোয়েন্টি ক্যাপ পেয়েছিলেন মোহাম্মদ শহীদ, আবু হায়দার রনি, মুক্তার আলী ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

এ ছাড়া এক সঙ্গে তিন ক্রিকেটারে অভিষেকের ঘটনা আছে দুটি। ২০১২ সালে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে বেলফাস্টে অভিষেক হয়েছিল জিয়াউর রহমান, আবুল হাসান রাজু ও ইলিয়াস সানীর। একই বছরের ১০ ডিসেম্বর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মিরপুরে অভিষেক হয়েছিল এনামুল হক, ‍মুমিনুল হক ও সোহাগ গাজীর।

২০০৬ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচের পর সর্বোচ্চ ছয়জনের অভিষেক হয়েছিল। কেনিয়ার বিপক্ষে ২০০৭ সালের ১ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচে অভিষেক হয়েছিল তামিম ইকবাল, নাজিমউদ্দিন, মোহাম্মদ আশরাফুল, অলক কাপালি, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও সৈয়দ রাসেলের।

আফিফ হোসেন

আফিফ হোসেন

আফিফ হোসেন

আফিফের লাইমলাইনে আগমন ২০১৬ সালের বিপিএল দিয়ে। বিশাল ক্রিস গেইলের সামনে পুচকে আফিফ হোসেন। ওই ম্যাচে অফ স্পিনে ৫ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেটে নিজের আগমনী বার্তা দিয়ে নেন আফিফ। এরপর সাফল্যের পথে এগিয়ে চলা। যুব দলে ধারাবাহিকভাবে পেয়েছেন সাফল্য। শেষ যুব বিশ্বকাপে ব্যাট হাতে হাঁকিয়েছেন চারটি হাফ সেঞ্চুরি। বল হাতে পেয়েছেন ৮ উইকেট। আর শেষ বিপিএলে খুলনা টাইটান্সের হয়ে ব্যাট হাতে ৬ ইনিংসে ৯৫ এবং বল হাতে পেয়েছিলেন ৪ উইকেট। সব মিলিয়ে যুব ক্রিকেট এবং ঘরোয়া ক্রিকেটের পারফরম্যান্স তাকে দিয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এগিয়ে যাওয়ার আত্মবিশ্বাস।

আরিফুল হক

আরিফুল হক

আরিফুল হক

আরিফুল ২০১২ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রাথমিক দলে ডাক পেয়েছিলেন। কিন্তু মূল দলে জায়গা না হওয়ায় পরবর্তীতে আর সুযোগ পাননি। এবারের বিপিএল পারফরম্যান্সে তার জাতীয় দলের দরজা খুলে দেয়। ব্যাটিংয়ে ১১ ইনিংসে ২৯.৬২ গড়ে ২৩৭ রান করেছেন ডানহাতি এই হার্ডহিটার। ১৫টি চার ও ১০টি ছক্কা হাঁকিয়েছেন পুরো বিপিএলে। বিশেষ করে শেষ দিকে নেমে ১৯ বলে ৪৩ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে আরিফুল যেভাবে মিরপুর মাতিয়ে রেখেছিলেন, তা এখনও দাগ কেটে আছে অনেকের হৃদয়ে। শেষ দিকে তার থেকে এমন ধুন্ধুমার ব্যাটিংয়ের প্রত্যাশা টিম ম্যানেজমেন্টের। সেই চিন্তায় তাকে দলে নেওয়া। সেই প্রত্যাশা পূরণ করত পারেন কি না, সেটাই দেখার।

নাজমুল ইসলাম অপু

নাজমুল ইসলাম অপু

নাজমুল ইসলাম অপু

ছোট্ট নাজমুল ইসলাম অপু পেয়েছেন বড় দায়িত্ব। সবশেষ বিপিএলের চ্যাম্পিয়ন দল রংপুর রাইডার্সের হয়ে দারুণ সময় কাটিয়েছেন বাঁহাতি স্পিনার। ১০ ম্যাচে ১২ উইকেট নিয়ে দলকে চ্যাম্পিয়ন করাতে বড় ভূমিকা রেখেছিলেন। আর তার ব্যতিক্রমী ‘সাপনৃত্য’ তো নজর কেড়েছিল সবার। কয়েক বছর ধরেই ঘরোয়া ক্রিকেটে পারফর্ম করে আসছেন অপু। এবার পেলেন বহুকাঙ্খিত সুযোগ। সেটাও সাকিব আল হাসানের বদলি হিসেবে। জাতীয় দলের জার্সিতে দলকে ভালো কিছু উপহার দিতে পারেন কি না, সেটাই দেখার।

জাকির হাসান

জাকির হাসান

জাকির হাসান

মিরপুরে গত বিপিএলে সিলেট সিক্সার্সের বিপক্ষে এক ম্যাচে রাজশাহী কিংসের হয়ে ২৬ বলে ৫১ রান করেছিলেন জাকির হাসান। অনূর্ধ্ব-১৯ দলে থাকাকালীন সময়ে তার ব্যাটিং নিয়ে বড় স্বপ্ন দেখছিল বিসিবির কর্তারা। ওই ম্যাচ তাকে নিয়ে আসে লাইমলাইটে। এরপর বিসিবির হাই পারফরম্যান্স ইউনিটের হয়েও দুর্দান্ত সময় কাটে তার। ঘরোয়া ক্রিকেটের ভালো পারফরম্যান্স তাকে এবার নিয়ে এসেছে আন্তর্জাতিক মঞ্চে।

বিপিএলে ভালো পারফর্ম করে দলে ঢুকেছেন তারা। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ তাদের ওপর রেখেছেন আস্থা। চ্যালেঞ্জটা এবার তাদের কাঁধে।

আপনার মতামত দিন....

এ বিষয়ের অন্যান্য খবর:


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


CAPTCHA Image
Reload Image