ডিপিএল শিরোপা জয়ে ত্রিমুখী লড়াই

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিটিজিবার্তা২৪ডটকম

সোমবার, ২  এপ্রিল ২০১৮

ডিপিএল শিরোপা জয়ে ত্রিমুখী লড়াই

আবাহনী, রূপগঞ্জ ও শেখ জামাল এর ডিপিএল শিরোপা জয়ে ত্রিমুখী লড়াই।

খেলা ডেস্ক : ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট ২০১৭-১৮ এর লিগ পর্বে আবাহনী ও লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ হেঁটেছে গায়ে গা লাগিয়ে। শেখ জামাল ছিল বেশ খানিকটা দূরে।  সুপার লিগেও পয়েন্ট টেবিলের প্রথম ও দ্বিতীয় স্থানটা আবাহনী ও রূপগঞ্জের দখলে। তবে শিরোপা দৌড়ে তাদের সঙ্গে বেশ ভালোভাবেই আছে শেখ জামাল।

ডিপিএল শিরোপা জয়ে ত্রিমুখী লড়াই

আবাহনী লিমিটেড

প্রিমিয়ার লিগের শেষ রাউন্ডের এসেও তাই বারুদে উত্তেজনা। শেষ দিনেই ঠিক হবে, এবারের শিরোপা যাচ্ছে কার ঘরে। ২২ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে থাকা আবহনী যেমন শিরোপা উৎসব করতে পারে, তেমনি ২০ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে থাকা রূপগঞ্জ ও শেখ জামালও মাততে পারে শিরোপা আনন্দে।

লিজেন্ড অব রূপগঞ্জ

বৃহস্পতিবার চূড়ান্ত রাউন্ডে আবাহনীর প্রতিপক্ষ রূপগঞ্জ। আর শেখ জামাল নামবে খেলাঘর সমাজ কল্যাণ সমিতির বিপক্ষে। শিরোপা নির্ধারণী দিনে প্রথম ও দ্বিতীয় স্থানে থাকা আবাহনী-রূপগঞ্জ মুখোমুখি হওয়ায় উত্তেজনার পারদ চড়ছে আকাশে। এই ম্যাচ ঘিরে শিরোপার সমীকরণ তাই কিছুটা জটিল হচ্ছে।

শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব

তবে শিরোপা নিষ্পত্তির সহজ হিসাব হলো- আবাহনীর জয়। ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটি জিতে গেলে আর কোনও সমীকরণে যেতেই হবে না। ১৬ ম্যাচ শেষে ২৪ পয়েন্ট নিয়ে মাতবে শিরোপা উৎসবে। কিন্তু তারা হেরে গেলেই হিসাব গোলমেলে!

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে দুই বা তার অধিক দলের পয়েন্ট সমান হলে শিরোপা নিষ্পত্তিতে আগে আসবে হেড টু হেড। সেখানেও সমান হলে এরপর আসবে নেট রানরেট। আবাহনীর বিপক্ষে রূপগঞ্জ জিতে গেলে দুদলের হবে সমান ২২ পয়েন্ট। তখন আসবে হেড টু হেড সমীকরণ। হিসাবটা আরও জটিল হবে যদি শেখ জামাল হারিয়ে দেয় খেলাঘরকে। কারণ জিতলে শেখ জামালের পয়েন্টও হবে ২২।

তিন দলের পয়েন্ট সমান হলে হেড টু হেড দেখা হবে তাদের। এখানেও আবাহনীর সম্ভাবনা থাকবে বেশি। কারণ রূপগঞ্জ ও শেখ জামালের বিপক্ষে এক জয়ের বিপরীতে তাদের থাকবে এক হার। হেড টু হেড সমান হওয়ায় সমীকরণ গড়াবে নেট রানরেটের দিকে। ১৫ ম্যাচ শেষে নেট রানরেটে নাসির হোসেনরা (০.৮৬৮) অনেকটা এগিয়ে আছে রূপগঞ্জ (০.৫০৭) ও শেখ জামাল (০.২৫১) থেকে।

তাই রূপগঞ্জের শিরোপা সম্ভাবনা তখনই উজ্জ্বল হবে, যদি আবাহনীকে তারা বিশাল ব্যবধানে হারাতে পারে। শেখ জামালের বেলাতে বিষয়টির আরও কঠিন। খেলাঘরের বিপক্ষে শুধু জিতলেই হবে না, নেট রানরেট বাড়াতে হবে অনেক। তাই শেষ ম্যাচে হারলেও শিরোপা জয়ের উল্লাস করার সুযোগ থাকবে আবাহনীর।

শেখ জামালের শিরোপা জেতা নির্ভর করছে দুটো বিষয়ের ওপর। প্রথমত, আবাহনীর হারতে হবে রূপগঞ্জের কাছে। দ্বিতীয়ত, খেলাঘরের বিপক্ষে জিততে হবে তাদের বিশাল ব্যবধানে। কারণ হেড টু হেডে রূপগঞ্জের বিপক্ষে জিতেছে তারা দুই ম্যাচই। রূপগঞ্জের বিপক্ষে এবারের মৌসুমের প্রথম ম্যাচেই তারা পেয়েছিল জয়। শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচটি জামাল জিতে নেয় মাত্র ৩ রানে। শেখ জামাল ৯ উইকেটে করেছিল ২৩০ রান। জবাবে রূপগঞ্জ নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষ করে ৮ উইকেটে ২২৭ রানে।

সুপার লিগেও জিতেছে শেখ জামাল। রূপগঞ্জের ৯ উইকেটে করা ২৬০ রানের জবাবে শেখ জামাল ২ ওভার আগেই জয় নিশ্চিত করে ৩ উইকেট হারিয়ে। ৭ উইকেটের গুরুত্বপূর্ণ এই জয় পয়েন্ট টেবিলে আরও উপরে নিয়ে যায় জামালকে।

ডিপিএল শিরোপা জয়ে ত্রিমুখী লড়াই

ডিপিএল শিরোপা জয়ে ত্রিমুখী লড়াই

হেড টু হেডে রূপগঞ্জের জেতার কোনও সম্ভাবনাই নেই। আবাহনীর বিপক্ষে শেষ ম্যাচটি জিতলেও তাদের মুখোমুখি লড়াইয়ে ফল হবে ১-১। লিগ পর্বে রূপগঞ্জের বিপক্ষে আবাহনী জিতেছে ৫ উইকেটে। নির্ধারিত ৫০ ওভারে রূপগঞ্জের ৮ উইকেটে করা ২৪৭ রান ২ ওভার আগে ৫ উইকেট হারিয়ে টপকে যায় আবাহনী।

আবাহনী-শেখ জামালের মুখোমুখি লড়াই আবার সমানে সমান। লিগ পর্বে শেখ জামালের বিপক্ষে আবাহনী পায় ৪৭ রানের জয়। আবাহনীর ৭ উইকেটে করা ২৭০ রানের জবাবে শেখ জামাল অলআউট হয় ২৩৩ রানে। তবে সুপার লিগে এসে প্রতিশোধ পর্বটা সেরে নেয় শেখ জামাল। উন্মুক্ত চাঁদের সেঞ্চুরিতে তারা পায় ২৬ রানের জয়।

অবশ্য হেড টু হেড কিংবা রানরেটের এই হিসাবে যেতেই হবে না, যদি আবাহনী জিতে যায়। হারলেও তাদের আশা বেঁচে থাকবে, যদি না নেট রানরেটে টপকে যায় রূপগঞ্জ ও শেখ জামালের। সেই সম্ভাবনা ক্ষীণ হলেও কে না জানে ক্রিকেট ‘মহান অনিশ্চয়তার খেলা’!

আপনার মতামত দিন....

এ বিষয়ের অন্যান্য খবর:


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


CAPTCHA Image
Reload Image