নির্বাচনী পরিবেশ ছিলো সুষ্ঠু ওশান্তিপূর্ণ

বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়নসংস্থার নারায়নগঞ্জ সিটিকর্পোরেশন নির্বাচন পর্যবেক্ষণবিষয়ক প্রাথমিক প্রতিবেদন

রাত পোহালেই নারায়ণগঞ্জে উৎসব-উৎকণ্ঠায় ভোটগ্রহণ

নারায়ণগঞ্জে উৎসব-উৎকণ্ঠায় ভোটগ্রহণ

বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার ১০ সদস্য বিশিষ্ট পর্যবেক্ষক দল নারায়নগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে সদর ও বন্দর উপজেলার মোট ২৫কেন্দ্র পর্যবেক্ষণ করে। অধিকাংশ কেন্দের বাইরে সরকার দলীয় সমর্থকদের সুস্পষ্ট প্রভাব দেখা গেলেও নির্বাচনী পরিবেশ ছিল সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ।

সকালের দিকে ভোটার উপস্থিতি কম মনে হলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটার উপস্থিতি বাড়তে থাকে। ভোটারদের উপস্থিতির হার ছিল আনুমানিক ৬৫ ভাগ। পর্যবেক্ষণকৃত কোন কেন্দ্রেই অপ্রীতিকর ও অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটেনি। আইন শৃংখলা বাহিনীর অধিক সংখ্যক উপস্থিতি, বিভিন্ন সংগঠনের নির্বাচন পর্যবেক্ষক ও অসংখ্য মিডিয়া কর্মীদের ভিড়ে দলীয় প্রতিক নিয়ে এবার স্থানীয় নির্বাচনী লড়াই ভিন্ন মাত্রা পেয়েছে।

পর্যবেক্ষনকৃত প্রায় সকল কেন্দ্রে নির্বাচনী সরঞ্জাম পর্যাপ্ত ছিলো। আইন শৃঙ্খলাবাহিনী ও নির্বাচনী কর্মকর্তাদের আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব পালন করতেদেখা গেছে।

বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার পর্যবেক্ষকদের প্রাথমিক প্রতিবেদনে আরোযে বিষয়গুলো উঠে আসে তা হলো

ভোটকেন্দ্রের বাইরের পরিবেশ:

পর্যবেক্ষণকৃত প্রায় প্রতিটি ভোট কেন্দ্রের বাইরের পরিবেশ ছিল উৎসবমুখর। তবে প্রায় প্রতিটি কেন্দ্রের সামনেই প্রার্থীদের পোষ্টার ঝুলতে দেখা গেছে। বেশ কয়েকটি নির্বাচনী ক্যাম্পও স্থাপিত হয়। বিপুলসংখ্যক আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে প্রায় প্রতিটি কেন্দ্রের সামনে অবস্থান করতে দেখা গেছে।

ভোট কেন্দ্রের ভেতরের পরিবেশ:

কোন কোন ভোট কেন্দ্রে আলোর অভাব পরিলক্ষিত হয় বিশেষ করে ৪৬ নং খানপুর বালক উচ্চ বিদ্যালয়, নারায়নগঞ্জ বার একাডেমী- এসব কেন্দ্রের বিভিন্ন বুথে আলোর স্বল্পতা পরিলক্ষিত হয়েছে।তাছাড়া বিবি মরিয়ম বালিকা উচ্চবিদ্যালয়, পাঠানটুলী আইলপাড়া সরকারী বিদ্যালয়  কেন্দ্রে গোপন বুথে ব্যবহৃত কাপড় ছিলো অত্যন্ত পাতলা যা ভোটারদেও ভোটদানে গোপনীয়তা রক্ষার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। বিভিন্ন কেন্দ্রের ভিতরে কিছু অননুমোদিত ব্যক্তিদের অবাধে ঘোরাফেরা করতে দেখাগেছে। শিউলি আক্তার নামে এক কাউন্সিলরকে বিভিন্ন কেন্দ্রের ভেতরে অবাধে ঘোরাফেরা করতে দেখা গেছে। নারায়নগঞ্জ বার একাডেমী কেন্দ্রে সকাল সাড়ে দশটার দিকে কিছু ভোটার বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করলে পুলিশ বাঁধা দেয়। প্রায় প্রতিটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহনে নিয়োজিত দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যাক্তিগন ও প্রিজাইডিং অফিসার ওসহকারী প্রিজাইডিং অফিসারদের দায়িত্বপূর্ণ আচরন করতে দেখা যায়।

দু একটি ক্ষেত্রে ভোটার লিষ্টে নামের তালিকার সাথে ভোটারদের আই ডির মিলনা থাকায় কয়েকজন ভোটার ভোট দিতে অসুবিধার সম্মূখীন হয়েছেন। ঝর্ণা আক্তার ৫৮১ ভোট দিতে সমস্যায় পরেছিলেন। বিবিমরিয়ম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ফয়জুন্নেসা ভোটার নং ৬৭১১৭৯০০১০৮৪ আই ই টি সরকারি উচ্চ বিদ্যারয় কেন্দ্রে ভোট দিতে পারেননি।

এদিকে কয়েকটি কেন্দ্রের বুথে বিএনপির কোন এজেন্টকে পাওয়া যায়নি। আই ই টি কেন্দ্রের বুথ ৫ ও৬ নং নারায়নগঞ্জ বার একাডেমীর ১ নংবুথে কোন বিএনপির এজেন্ট পাওয়া যায়নি। সরকারী মহিলা কলেজ কেন্দ্রে ৪ও ৫ নং বুথে বিএনপি দলীয় কোন এজেন্টপাওয়া যায়নি।

অন্যদিকে ৬ নং কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থীর কোন এজেন্ট পাওয়া যায়নি। বন্দর শিশু নিকেতন স্কুল কেন্দ্রে ৯ নং বুথে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থীর কোন এজেন্ট পাওয়া যায়নি। নারয়নগঞ্জ ক্লাব কেন্দ্রের ৮ নং নারী বুথে বিএনপি দলীয় কোন এজেন্ট পাওয়া যায়নি। সরকারী মহিলা কলেজ কেন্দ্রে নারীদের বুথ তৃতীয় তলায় হওয়ায় গর্ভবর্তী, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী নারী ভোটারদের বেশঅসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়েছে। বন্দর শিশুবাগ বিদ্যালয় কেন্দ্রে কয়েকজন বয়স্ক/প্রতিবন্ধি ভোটারদের (আম্বিয়া ওইসমাইল) সহযোগীতা করার কেউ না থাকায় বেশ অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়েছে।

পাশাপাশি অনেক গুলো কেন্দ্র হওয়ায় কয়েকজন ভোটার তাদের ভোটের স্থাননিয়ে জটলা পাকিয়ে ফেলেছিল। সরকারী তোলারাম কলেজ কেন্দ্রের দু মহল্লার ভোটারদেও বুথ খুজতে বেশ সমস্যায়পড়তে হয়।

আই ই টি সরকারী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়কেন্দ্রে কয়েকজন শিশুকে ধানের শীষ মার্কা প্রতীক ঝুলিয়ে ঘুরতে দেখা গেছে। তবে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে। সবমিলিয়ে নির্বাচনের পরিবেশ ছিলসুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ন। সংস্থা মনে করে কমিশন, সরকার ও বিরোধী রাজনৈতিক দলেরইতিবাকচ আচরন নারায়নগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন আলাদা মাত্রা যোগকরেছে।

আপনার মতামত দিন....

এ বিষয়ের অন্যান্য খবর:


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


CAPTCHA Image
Reload Image

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.