প্রাক্তন ছাত্রলীগ নেতাদের সাথে মেয়র নাছিরের মতবিনিময় অনুষ্ঠিত

সিটিজিবার্তা টোয়েন্টিফোর ডটকম

Published: 23 Jun 2016  08:13:39  PM  Thursda।।

প্রাক্তন-ছাত্রলীগ-চসিক-মেয়র-মতবিনিময়

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন চট্টগ্রাম সরকারী সিটি বিশ্ববিদ্যালয় এর প্রাক্তন ছাত্রলীগ ও ছাত্র সংসদ নেতৃবৃন্দের সাথে ২২ জুন ২০১৬ খ্রি. বুধবার, মতবিনিময় এবং ইফতারে শরিক হন।

মতবিনিময় সভায় অন্যদের মধ্যে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের প্রাক্তন সভাপতি সফর আলী, মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, আওয়ামীলীগ নেতা মোহাম্মদ ইসা, ১৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এ এফ কবির আহমদ মানিক, ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন খালেদ, ২৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর গোলাম মোহাম্মদ জোবায়ের, সিটি কলেজের সাবেক ভিপি সাদেক হোসেন পাপ্পু, ১৪নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক দিদারুল আলম মাসুম, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য দিদারুল মনির রুবেল, সদস্য হাসানুর রহমান লিটন, সাবেক জিএস নোমান লিটন, সাবেক জিএস ইমতিয়াজ আহমদ, সাবেক ভিপি আবদুল হাই, সাবেক ভিপি মাসুদ করিম টিটু, আওয়ামীলীগ নেতা দিদারুল আলম, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা পুলক খাস্তগীর, সাবেক জিএস সাইফুদ্দিন আহমেদ, সাবেক এজিএস আবুল হাসনাত বেলাল ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সহ-সম্পাদক জাফর আহমদ মুজাহিদ সহ প্রাক্তন ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ মতবিনিময়ে উপস্থিত ছিলেন।

মতবিনিময়ে সিটি মেয়র চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, পাকিস্তানী স্বৈরশাসক ও সামরিক শাসকদের বিরুদ্ধে বাংলার ছাত্র সমাজ রুখে দাঁড়িয়ে ১৯৫২তে ভাষার অধিকার, ১৯৬২ তে শিক্ষার অধিকার, ১৯৬৯ এ ৬ ও ১১ দফার ভিত্তিতে গণঅভ্যূত্থান রচনা করে সামরিক ও স্বৈরাচারের পতন ঘটিয়ে বাংলার মানুষের অধিকার ও স্বাধীকারের দাবী ত্বরান্বিত করেছে। পাক আমলই নয়, স্বাধীনতা সংগ্রামে ছাত্রলীগের নেতা কর্মীদের ত্যাগ ও ভূমিকার কারণেই বাংলাদেশ মাত্র ৯ মাসের যুদ্ধে শত্রুমুক্ত করা সম্ভব হয়েছে। ছাত্রলীগের অগুনন নেতা কর্মীর রক্ত ও ত্যাগের ফসল স্বাধীন বাংলাদেশ।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের উপর প্রতিষ্ঠিত ছাত্রলীগ এ দেশের মাটি ও মানুষের পরীক্ষিত সংগঠন। ১৯৭৫ থেকে ১৯৯৬, এবং ২০০৫ থেকে ২০০৮ সন পর্যন্ত ছাত্রলীগের নেতা কর্মীর ভূমিকা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের নেতা কর্মীদের নিকট চিরস্মরনীয় হয়ে থাকবে। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা সহ মানুষের মৌলিক অধিকার সুরক্ষায় ছাত্রলীগের ভূমিকার তাৎপর্যপূর্ণ।

জনাব আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, সন্ত্রাস আর জঙ্গীবাদ যেভাবে মাথাচড়া দিয়েছে তাদের নির্মূল করা ছাড়া দেশ ও জাতির মঙ্গল করা সম্ভব নয়। জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের সাফল্য, অর্জন ও গৌরব গাঁথাগুলো দু’চারটি ঘটনার মধ্য দিয়ে ম্লান করে দিচ্ছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের অভাবনীয় উন্নয়ন, উত্থান ও অগ্রযাত্রায় ভিত হয়ে ১৯৭১ ও ১৯৭৫ সনের পরাজিত শক্তি দেশী-বিদেশী পৃষ্টপোষকতায় দেশকে অকার্যকর জঙ্গী রাষ্ট্রে পরিনত করার চেষ্টায় লিপ্ত।

মেয়র বলেন, প্রাক্তন ছাত্র নেতাদের অভিজ্ঞতা, ধীশক্তি, বুদ্ধি-বিবেচনা ও বিচক্ষনতায় আওয়ামীলীগের শক্তিকে শানিত করতে হবে। জনাব আ জ ম নাছির উদ্দীন বিভেদ নয় ঐক্য, এ শ্লোগানকে ধারন করে হিংসা-বিদ্বেষ সব কিছু ভুলে সংগঠন, দেশ ও জাতির বৃহত্তর কল্যাণে সকলকে একজোট হয়ে কাজ করার আহবান জানান।

আপনার মতামত দিন....

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


CAPTCHA Image
Reload Image

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.