মাদকের বিস্তারে দায়ী ব্যক্তিরা হলেন এমপি বদির মতো রাঘববোয়ালরা

Tuesday, 22 May 2018

ctgbarta24.com

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

বিরোধী রাজনৈতিক দলের তরুণ নেতাদের গ্রেপ্তার করে ক্রসফায়ারে দেওয়ার উদ্দেশ্যে মাদক নির্মূলের নামে বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ঘটানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি।

বিষয়টিকে সরকারের অসৎ উদ্দেশ্য অভিহিত করে দেশি-বিদেশি মানবধিকার সংগঠন, গণমাধ্যম ও সুশীল সমাজকে এর বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে দলটি।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে কথা বলেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, ‘বিচারবর্হিভূত হত্যার নামে সারা দেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মানুষ হত্যা প্রাত্যহিক কৃত্যে পরিণত হয়েছে। যা মানবধিকারের পরিপন্থি ও আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। মানবধিকারের এ রক্তাক্ত মূর্তি দেশবাসীর মধ্যে ভয়ের শিহরণ বয়ে যাচ্ছে। এ অনাচারের সরকারি প্রশাসনের মানবতার অধঃপতন আরো নিচের দিকে নামছে।’

বেআইনিভাবে মানুষ হত্যার অধিকার কোরো নেই উল্লেখ করে রিজভী বলেন, ‘গুম, খুন ও বিচারবর্হিভূত হত্যার মাধ্যমে অপরাধ দমন করা সম্ভব নয়। বেআইনি মৃত্যূদণ্ড অপরাধ দমনের মানদণ্ড হতে পারে না।’

বিএনপির এই নেতা অভিযোগ করে বলেন, ‘আমরা আশঙ্কা করেছিলাম এর পেছনে সরকারের অসৎ থাকতে পারে। সেটি এখন ফুটে ওঠতে শুরু করেছে। আসলে মাদক নির্মূলের নামে বিচার বর্হিভূত হত্যার যে হিড়িক চলছে, এর গভীর রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে হচ্ছে মাদকবিরোধীদের নির্মূল করতে যেয়ে টার্গেট করে বিরোধীদলের তরুণ নেতা-কর্মীদের মিথ্যা অভিযোগে গ্রেপ্তার করে মেরে ফেলা। গত রাতে নেত্রকোনায় কথিত ক্রসফায়ারে হত্যা করা হয়েছে ছাত্রদলের সদস্য আমজাদ হোসেনকে।’

আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে আতঙ্ক তৈরি করতেই সরকারের এসব করছে দাবি করে তিনি বলেন, ‘এটি মানুষকে ভয় পাইয়ে দেওয়ার নতুন প্রকল্প। সুদূরপ্রসারি নীল নকশা।  রমজান মাসে কর্দমাক্ত খানাখন্দে ভরা রাস্তাঘাট, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যে জনজীবনে নাভিশ্বাস এবং আইনশৃঙ্খলার করুণ পরিণতিতে দেশের বেহাল অবস্থা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতেই দৃষ্টি ফেরানোর কৌশলে লিপ্ত রয়েছে কি না-সে প্রশ্নই জনমনে উকি দিয়েছে।’

দেশে মাদকের ব্যাপকতা ছড়িয়ে পড়ার জন্য সরকারকে দায়ী করে বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘পরিকল্পিতভাবে মাদকের বিস্তার ঘটানো হয়েছে। এর পিছনে দায়ী ব্যক্তিরা হলেন সরকার দলীয় এমপি বদির মতো রাঘববোয়ালরা। যারা মাদক ব্যবসার মাধ্যমে শত শত কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। এমনকি পুলিশের কিছু উচ্চ পর্যায়ের লোকেরাও মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত, সেগুলো গণমাধ্যমে এসেছে। প্রতিবেশী দেশগুলো থেকে নানা চ্যানেলে মাদক এসে ঢুকছে বাংলাদেশে। এ চ্যানেল গুলোর উৎস মুখ বন্ধ করতে পারেনি কেন সরকার?’

হয়রানি করতে ইলিয়াস আলীর বাসায় পুলিশ
রমজান মাসেও সাদা পোশাকে পুলিশ তল্লাশির নামে বিএনপি নেতা-কর্মীদের হয়রানি চলছে অভিযোগ করে রিজভী বলেন, ‘প্রতিদিন কোথাও না কোথাও বিএনপিসহ বিরোধীদলের নেতা-কর্মীদের হয়রানি, গ্রেপ্তার কিংবা জেল গেটে গ্রেপ্তার চলছেই। গত রাতে সেহরীর কিছুক্ষণ আগে নিখোঁজ বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর রাজধানীর বনানীর সিলেট হাউসের বাসায় ডিবি পরিচয়ে পুলিশের তল্লাশীর নামে তাণ্ডব চালায়।’

তিনি বলেন, ‘পুলিশ জোরে জোরে দরজায় ধাক্কা দিয়ে ইলয়াস আলীর অসুস্থ স্ত্রীকে দরজা খোলার জন্য বলে। আতঙ্কিত হয়ে ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা আমাকেসহ বিএনপির নেতাদের ফোনে আকুতি জানাতে থাকে। পরে ইলিয়াস আলীর বাসার সামনে গণমাধ্যমের উপস্থিতিতে ইলিয়াস আলীর বাসার বাইরে অবস্থান নেওয়া ডিবি পুলিশ পরিচয় ব্যক্তিরা চলে যায়। বিরোধীদলের মধ্যে ভীতিকর পরিস্থিতি তৈরির জন্যই এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে।’

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রসঙ্গ তুলে রিজভী বলেন, ‘নৌকার পক্ষে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে গাজীপুরের মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যদের নির্দেশ দিয়েছেন প্র্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যা আজ সব গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে। যা নির্বাচন আচরণবিধির সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য নির্বাচন কমিশনকেও প্রভাবিত করবে।’

রাইজিংবিডি

আপনার মতামত দিন....

এ বিষয়ের অন্যান্য খবর:


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


CAPTCHA Image
Reload Image

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.