মার্চ মাসে বেড়েছে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিটিজিবার্তা২৪ডটকম

সোমবার, ২ এপ্রিল ২০১৮

রিজার্ভ চুরি ও এটিএম জালিয়াতি

অর্থনৈতিক ডেস্ক : সদ্য বিদায়ী মার্চ মাসে বেড়েছে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স। প্রবাসীরা ব্যাংকিং চ্যানেলে ১৩০ কোটি ৪ লাখ ডলারেরও বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে প্রায় ২০ শতাংশ বেশি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ হালনাগাদ প্রতিবেদনে এসব তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে (জুলাই-মার্চ) আগের অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ১৭ শতাংশ বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এ সময় প্রবাসীরা দেশে পাঠিয়েছেন ১ হাজার ৭৬ কোটি ১৩ লাখ ডলার।

সোমবার বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল ৩২ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশের জিডিপিতে বর্তমানে ১২ শতাংশ অবদান রাখছে প্রবাসীদের পাঠানো বৈদেশিক মুদ্রা। বাংলাদেশ ব্যাংকের নানামুখী উদ্যোগের কারণে গত বছরের অক্টোবর মাস থেকে এই রেমিট্যান্স প্রবাহ ইতিবাচক ধারায় ফেরে। গত অক্টোবর মাসে ১১৫ কোটি ৯০ লাখ ডলার রেমিট্যান্স আসে দেশে। যা গত সেপ্টেম্বর মাসের চেয়ে ৩০ কোটি ৩০ লাখ ডলার বেশি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত ফেব্রুয়ারি মাসে দেশে ১১৪ কোটি ৯০ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। সে হিসেবে ফেব্রুয়ারির চেয়ে মার্চে রেমিট্যান্স বেড়েছে ১৫ কোটি ১৪ লাখ ডলার। মার্চ মাসে রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ৩১ কোটি ৫৮ লাখ ডলার। বিশেষায়িত দুটি ব্যাংকের মাধ্যমে ১ কোটি ১৩ লাখ ডলার এসেছে। এছাড়া বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ৯৫ কোটি ৯৫ লাখ ডলার এবং বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ১ কোটি ৩৮ লাখ ডলার এসেছে।

বেসরকারি ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ২৮ কোটি ২৫ লাখ মার্কিন ডলার। এছাড়া অগ্রণী ব্যাংকের মাধ্যমে ১২ কোটি ৫৫ লাখ ডলার, সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে ৯ কোটি ৮৪ লাখ ডলার এবং জনতা ব্যাংকের মাধ্যমে ৭ কোটি ৭১ ডলার এসেছে।

২০১৬-১৭ অর্থবছরে প্রবাসীরা ১ হাজার ২৭৬ কোটি ৯৪ লাখ ডলারের সমপরিমাণ রেমিট্যান্স দেশে পাঠিয়েছেন। যা এর আগের ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ছিল ১ হাজার ৪৯২ কোটি ৬২ লাখ মার্কিন ডলার। সে হিসেবে গত অর্থবছরে রেমিট্যান্স কমেছে ২১৬ কোটি ১৭ কোটি ডলার বা ১৪ দশমিক ৪৭ শতাংশ।

আপনার মতামত দিন....

এ বিষয়ের অন্যান্য খবর:


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


CAPTCHA Image
Reload Image

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.