শরিকদের ছাড়াই বিএনপির সমাবেশ

মঙ্গলবার, ০৫ জানুয়ারি, ২০১৬

সিটিজিবার্তা২৪ডটকম

bnnn

ডেস্ক সংবাদঃ   নানা ধরণের প্রলোভন থাকলেও জোটগতভাবে সংসদ নির্বাচন বর্জন করেছিল বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট। তবে মাত্র দুই বছরের মাথায় ভোট বর্জনের সেই দিনটি শরিকদের ছাড়াই স্মরণ করতে যাচ্ছে বিএনপি। মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত জোটের কোনো শীর্ষ নেতা বহুল আলোচিত সমাবেশে আমন্ত্রণ পাননি বলে জানা গেছে।বিষয়টি নিয়ে শরিক দলগুলোর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।তবে সময়ের স্বল্পতা ও নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে মঙ্গলবার বিএনপি ঘোষিত ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবসের’ সমাবেশ শেষ করতে এবং খালেদা জিয়ার বক্তব্যকে ফোকাস করতে বিএনপিও শরিকদের না রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা গেছে। একইসঙ্গে বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতাদের বক্তব্যও সংক্ষিপ্ত করার জন্য বলা হয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে খালেদা জিয়ার বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।বৈঠক সূত্র জানায়, সমাবেশের অনুমতি দেয়ার জন্য সরকারের প্রতি ধন্যবাদ জানানো হয়। তবে এবারই বিএনপির সমাবেশ কর্মসূচিতে জোটের শরিক দলের কোনো নেতাকে দেখা যাবে না। এককভাবেই বিএনপির এই কর্মসূচি শেষ করতে চায়। বৈঠকে খালেদা জিয়ার নিরাপত্তার জন্য আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার কঠোর নজরদারি কামনা করা হয়।

বৈঠকে উপস্থিত কয়েকজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে  জানান, সমাবেশে মূলত চেয়ারপারসনের বক্তব্যই মূল ফোকাস থাকবে। দেশে সৃষ্ট রাজনৈতিক সংকটের সমাধান করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানাবেন তিনি। এছাড়া সরকারকে সংলাপে বসতে এবং একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সব দলের অংশগ্রহণে জাতীয় নির্বাচনের দাবি জানাবেন তিনি।বক্তব্য দেয়ার সময় উস্কানিমূলক মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকতে দলের জ্যেষ্ঠ নেতাদের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন। এর পরিবর্তে কোন কোন খাতে উন্নয়ন প্রয়োজন বা সরকারের ভুল আছে কোথায় সেগুলো তুলে ধরতে পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।
এদিকে মঙ্গলবার মধ্য রাতে জোটের একজন মহাসচিব ক্ষোভ প্রকাশ করে  বলেন, ‘জোটের অনেক শীর্ষ নেতা বিএনপির পক্ষ থেকে কোনো আমন্ত্রণ পাননি বলে আমাকে বলেছেন। আমার দলের চেয়ারম্যানও পাননি। তাই মনে হয় শরিকরা কেউ সমাবেশ থাকছে না। জোটের বিষয়টি হলো: ২০-১৯= বিএনপি।তিনি আরও বলেন, ভোট তো একসঙ্গে বর্জন করেছিলাম। তাই অনেক হয়েছে। এবার হয়তো নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষার জন্য নামতে হবে।

আপনার মতামত দিন....

এ বিষয়ের অন্যান্য খবর:


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


CAPTCHA Image
Reload Image

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.