শিশু রাইফার মৃত্যু ও আমাদের কিছু প্রশ্ন

রোববার, ১ জুলাই ২০১৮

মাহবুবা সুলতানা শিউলি , সিটিজিবার্তা২৪ডটকম

শিশু রাইফার মৃত্যু ও আমাদের কিছু প্রশ্ন

নিহত শিশু রাইফা

শিশুকন্যা রাইফার অকাল মৃত্যু , আমাদের জন্য আরেকটি ট্র্যাজেডি। কাঁদিয়ে দিলো আমাদের মতো অধমদের বিবেককে, কিন্তু কাঁদাতে পারেনি মানবতাকে। তাইতো খুনীরা বার বার পার পেয়ে যায়!

চট্টগ্রাম নগরীর প্রাইভেট ম্যাক্স হাসপাতালে ভুল চিকিৎসার বলি হয়ে গত ২৯ জুন রাত ১২ টার দিকে আড়াই বছর বয়সী ফুটফুটে কন্যা শিশু রাইফা মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। পরে দায়িত্বরত ডাক্তার ও নার্সকে আটক করে থানায় নিয়ে আসার পর তাদের ছাড়িয়ে নিতে আসেন বিএমএর’র সেক্রেটারি। যিনি নিজেকে ডাক্তারের চেয়ে নেতা হিসেবে পরিচয় দিতেই বেশী স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন বলে পত্রিকা মারফত জানতে পেরেছি। কত বড় সাহস! বিএমএ’র সেক্রেটারি ও তার সাঙ্গপাঙ্গ নেতাদের!! তারা থানায় দায়িত্বরত পুলিশ অফিসার এবং সাংবাদিকদের সাথে অসদাচরণ করে এবং চট্টগ্রামের সব চিকিৎসাকেন্দ্র বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দেন। তারা থানায় দাম্ভিক স্বরে বলেন, সব হাসপাতাল বন্ধ করে পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করে দেয়া হবে।

চিকিৎকদের সংগঠনের নেতারা এভাবে প্রকাশ্যে হুমকি কি বার্তা বহন করে। তারা কি এই হুমকির মাধ্যমে বোঝাতে চাচ্ছেন যে, চিকিৎসকের অবহেলায় কোন রোগী মারা গেলেও রোগীর স্বজনরা প্রতিবাদ করতে পারবেনা। কোন কথা বলতে পারবেনা। বর্তমানে কতিপয় ডাক্তার নামধারী ভন্ডরা তাদের অপকর্ম ঢাকতে কথায় কথায় একযোগে চিকিৎসা বন্ধ করার হুমকি দিয়ে থাকেন। কিন্তু সাংবাদিকরা প্রতিবাদ স্বরূপ একযোগে প্রকাশনা বন্ধ কিংবা কাজ না করার ঘোষণা দিতে পারেন না। বড় হাসপাতালের কর্পোরেট বিজ্ঞাপন বন্ধ হবে এমন শঙ্কায় অনেকে নির্ভেজাল সত্য সংবাদটিও পরিবেশনের সাহস করেননা, কারণ তাতে যদি নিয়মিত বিজ্ঞাপন বন্ধ হয়ে যায়!

শুধু ডাক্তারদের ক্ষেত্রে নয়, বড় কোন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধেই একযোগে কোন সংবাদ পরিবেশনের নজির তেমন একটা আমাদের দেশে চোখে পড়েনা। কেননা এখন বড় সব কর্পোরেট হাউজেরই একাধিক টেলিভিশন, প্রিন্ট পত্রিকা এবং অনলাইন প্রকাশনা রয়েছে। সেসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে লেখার দুঃসাহস দেখাতে যাবে কোন দুঃখে ?

সাংবাদিকরা তাদের কোন বিপদেই এক হতে পারছেন না কারণ মিডিয়া এখন কর্পোরেট দাসত্বে বন্দী। ছোটখাট মিডিয়াগুলো কিছু লেখার চেষ্টা করলেও সেগুলোকে আন্ডারগ্রাউন্ড বলে উড়িয়ে দেয়া হয়। তো, মূলধারার দাবীদার’দের কাছে একটাই প্রশ্ন, “কর্পোরেট হাউজের প্রকাশনায় কাজ করে আর কি-ইবা তুলে ধরবেন জাতির সন্মুখে”? তাই, এভাবেই একের পর এক নিজে, পরিবার, সহকর্মী, আতœীয়স্বজনসহ যে কারো বিপদ নিরবে সহ্য করে নিতে হয়।

দেশের প্রখ্যাত জাতীয় দৈনিক পত্রিকা ‘দৈনিক সমকাল’ পত্রিকার চট্টগ্রাম ব্যুরোর সিনিয়র রিপোর্টার সাংবাদিক রুবেল খানের ফুটফুটে একমাত্র কন্যা শিশুটির অকালে ঝরে যাওয়াটা যদি সাংবাদিক সমাজ সহজভাবে নেয় এবং এর সঠিক তদন্ত-বিচার যদি সঠিকভাবে না হয় এবং এদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত শাস্তির জন্য একযোগ প্রতিবাদ না করেন, তবে আমরা সাধারণ মানুষরা কোথায় গিয়ে দাঁড়াবো! কেউ কি তা ভেবে দেখেছেন?

কলম সৈনিকেরা একত্রিত হও। কলমই হোক সবচেয়ে বড় ও একমাত্র হাতিয়ার এসব অন্যায়, অনাচার ও দায়িত্বজ্ঞানহীন কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে কলম শক্তির কোন বিকল্প নেই। শিশু রাইফাতো আমাদেরই সন্তান। রাইফার স্থলে আমার, আপনার বা যে কারও আদরের ধন, কলিজার টুকরা সোনামনি থাকতে পারতো!

আর ভাবতে পারছিনা। আল্লাহর পর আমরা ডাক্তারের দিকেই তো তাকিয়ে থাকি। একটু সুন্দর ব্যবহার, একটু আস্থা বা ভরসার স্থলতো তারাই। তাৎক্ষণিক চিকিৎসার জন্য মানুষ কোথায় যাবে? শিশুকন্যা রাইফাকে ভালো চিকিৎসা দেয়ার জন্যইতো নামধারী এ চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে ছুটে গিয়েছিলেন নিয়ে সাংবাদিক রুবেল ও তার স্ত্রী। টাকা-পয়সা খরচ করে কু-চিকিৎসার জন্যতো ছুটে যায়নি। কি অপরাধ ছিল তাঁদের? সুচিকিৎসা তো পায়নি, পেয়েছে কুচিকিৎসা, দুর্ব্যবহার, হতে হয়েছে লাঞ্ছিত এবং গ্রহণ করতে হয়েছে একমাত্র আদরের ধনের নিস্তেজ দেহ, নিথর লাশ….!!!!!!

এদেশের বড় বড় হাসপাতাল গুলোতে সামান্য গলা ব্যথা ও ঠান্ডাজনিত রোগের চিকিৎসায় যদি রোগীর মৃত্যু হয়, তবে কেন মানুষ পয়সা খরচ করে বিদেশে যাবে না!! এদশের ক্লিনিক হাসপাতাল সমূহে সামান্য একটু অসুস্থতা, জ্বর বা যেকোন চিকিৎসায় রোগীকে এমনভাবে ভয় ঢুকিয়ে দেয়া হয় যে রোগীকে মৃত্যুর আগেই মৃত যাত্রী বানিয়ে দেয়া হয়। রোগীরা ১০০-৫০০/- টাকার অষুধের প্রেসক্রিপশনের জন্য টেস্ট দিবে ২০/২৫ হাজার টাকার । যা একজন মানুষের একমাসের বেতনও তো হতে পারে! তাহলে মানুষ কি করবে, কোথায় যাবে বা কোথায় দৌঁড়াবে!!! একযোগে ঢালাওভাবে সবাই নয় তবে ধান্দাবাজ সব পেশায় আছে। ডাক্তার, পুলিশ, শিক্ষক, সাংবাদিক, চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী, আমলা, কম-বেশী সবাই ধান্দাবাজ। এসব কিছু ধান্দাবাজ এর কারণে পুরো দেশ ও জাতি আজ উন্নতির পথে প্রধান অন্তরায়।

সৎ সাহসের প্রয়োজন এখনই। এসব অপকর্মকারী কিছু ডাক্তাররা হলো বর্তমান যুগের টাকার মেশিন। তাই তাদের বিরুদ্ধে লিখতে গেলেই অনেকের কলমের কালি শুকিয়ে যায়। দেশের সব টিভি চ্যানেল, প্রিন্ট মিডিয়া ও অনলাইন পোর্টাল গুলোতে এসব নেতা ও হসপিটাল গুলোর বিরুদ্ধে ধারাবাহিকভাবে রিপোর্ট করা উচিত। “শক্তের ভক্ত নরমের যম” একথাটি ভুলে গেলে চলবে না। শিশুকন্যা রাইফা হত্যাকারীদের ঘাতকদের অবিলম্বে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তরি ব্যবস্থা করা হোক।

জেগে ওঠো মানুষ..! জাগিয়ে তুলো মানবতাকে!!! আমরা ছোট্ট সোনামনি রাইফার ঘাতকদের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই। যেন আর কোন রাইফা বাবা-মায়ের বুক খালি করে অকালে ঝরে না যায়।

লেখক: মাহবুবা সুলতানা শিউলি
সদস্য, বোর্ড অব ট্রাস্টিজ, কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।

আপনার মতামত দিন....

এ বিষয়ের অন্যান্য খবর:


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


CAPTCHA Image
Reload Image

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.