‘সালাম পার্টি’ থেকে সাবধান

Thursday, 29 March 2018

ctgbarta24.com

দেখলে মনে হবে কোন কর্পোরেট অফিসে বড় পদে চাকরি করে নতুবা কোন বড় ব্যবসায়ী। বাচনভঙ্গি ও চালচলনে রয়েছে আধুনিকতার ছোঁয়া। হঠাৎই আপনার সামনে হাজির হয়ে সম্মানের সাথে দিবে সালাম। আপনিও হয়তো থমকে দাঁড়াবেন, কৌতুহলী হয়ে উঠবেন। আর এই কৌতুহলের সুযোগ নিয়েই হাতিয়ে নেয়া হবে আপনার টাকা-পয়সা, মোবাইল ইত্যাদি। হ্যাঁ, এরাই ‘সালাম পার্টি’। রাজধানীতে এরকমই একটি সক্রিয় ‘সালাম পার্টি’ চক্রের পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পল্টন থানা পুলিশ।

গত ২৮ মার্চ পল্টন মডেল থানাধীন দি আইডিয়াল ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সামনে থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় পল্টন থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- মোঃ জিতু (৪৯),মোঃ মিজান (৩৫),মোঃ আকতার হোসেন (৪৫),মোঃ রিপন (২৮) ও মোঃ পিন্টু মিয়া (৩১)। এ সময় তাদের নিকট হতে ছিনতাইকৃত ১ লক্ষ টাকা উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, এ চক্রের সদস্যরা বর্তমান সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে চলে। উন্নতমানের শার্ট, প্যান্ট, জুতা এমনকি শীতকালে কোট ও টাই পড়ে ঘুরে বেড়ায় টার্গেটের সন্ধানে। বিশেষ কায়দায় তারা চাকু, চাপাতিসহ ধারালো অস্ত্র নিজেদের প্যান্ট বা কোটের পকেটে লুকিয়ে রাখে। যা বাইরে থেকে দেখলে বুঝার কোন উপায় নেই।

ভদ্রলোকের বেশ ধরে তারা ২/৩ ঘন্টার জন্য রিক্সা ভাড়া করে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরাঘুরি করতে থাকে। ব্যাংক অথবা এটিএম বুথের পাশে একজন তীক্ষ্ন দৃষ্টিতে অবস্থান নিয়ে থাকে। লক্ষ্য রাখে কে কত টাকা নিয়ে বের হচ্ছে। নিজেদের টার্গেট পেয়ে গেলে ঐ লোকটি পিছু নেয় তার। পথের মধ্যে মোবাইলে তাদের অপর সঙ্গীদের জানিয়ে দেয় তাদের অবস্থান। পিছু নেয়ার এক পর্যায়ে সুবিধামত জায়গায় রিক্সা নিয়ে ঘোরাঘুরিকারীদের একজন সেই ব্যক্তির সামনে এসে সালাম দিয়ে বলে, ‘ভাই কেমন আছেন? আপনি অমুক না?’ এরই মধ্যে এ চক্রের ছদ্মবেশী আরো কয়েকজন রিক্সাটিকে ঘিরে ফেলে। নিজেরা নিজেদের গায়ে ধাক্কা দিয়ে তা না হলে অন্য কোন ভাবে টার্গেট ব্যক্তির আশেপাশে একটা জটলা তৈরি করে। এ সুযোগে অন্যান্য সহযোগিরা ভিকটিমের পকেটে হাত ঢুকিয়ে যা পায় নিয়ে নেয় বা তার হাতে ব্যাগ থাকলে ব্যাগসহ টাকা মোবাইল নিয়ে যায়। তারপর খুব দ্রুত সটকে পরে। এভাবে ভিকটিমের চারপাশে হঠাৎ করে জটলা শুরু হয় আর হঠাৎ করেই জটলা শেষ হয়ে যায়। মাঝখান থেকে নাই হয়ে যায় ভিকটিমের টাকা-পয়সা, মোবাইল, মানিব্যাগ ইত্যাদি।

গ্রেফতারকৃতরা আরো জানায়, তারা নির্দিষ্ট এলাকায় সিন্ডিকেটের মাধ্যমে কাজ করে। এক এলাকার সিন্ডিকেট অন্য এলাকায় কাজ করে না। এরা এলাকা ভিত্তিক ৪/৫ জনের দল হয়ে কাজ করে থাকে। গ্রেফতারকৃত চক্রটি রাজধানীর শান্তিনগর, পল্টন ও কাকরাইল এলাকায় কাজ করত।

ডিএমপি

আপনার মতামত দিন....

এ বিষয়ের অন্যান্য খবর:


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


CAPTCHA Image
Reload Image

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.